হুয়াওয়ে সম্পর্কে এত ভীতিকর কি?

গত দশ বছরে টেক জায়ান্ট হুয়াওয়ে উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এটি বিশ্বব্যাপী স্মার্টফোনের বাজারে অ্যাপলকে ছাড়িয়ে গেছে, এবং এর সরঞ্জাম বিশ্বব্যাপী ১৭০ টি দেশে টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থায় রয়েছে। কিন্তু হুয়াওয়ে এখন নিজেকে বিশ্বব্যাপী কলঙ্কের কেন্দ্রস্থলে খুঁজে পেয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার লঙ্ঘন করে ইরানে টেলিকম সরঞ্জাম বিক্রি করার অভিযোগে কানাডায় এই কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা কন্যা এবং প্রধান অর্থ কর্মকর্তা কে গেপ্তার করা হয় ।

এক সপ্তাহ পরে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আদালত পুরো কোম্পানির বিরুদ্ধে ব্যাংক জালিয়াতি, ন্যায়বিচারের বাধা এবং প্রতিদ্বন্দ্বী টি-মোবাইল থেকে প্রযুক্তি চুরির অভিযোগ আনে।

অস্ট্রেলিয়ান স্ট্র্যাটিজিক পলিসি ইন্সটিটিউট-এর টম উরেন বলেন, নিরাপদ এবং শক্তিশালী ফাইভ জি নেটওয়ার্ক ভবিষ্যৎ অর্থনীতির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সেজন্যই হুয়াওয়ে নজরদারীর মধ্যে রয়েছে।
হুয়াওয়েকে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র যেসব অভিযোগ করছে সেগুলোর ব্যাপারে মি: উরেন বলেন, চীনের আইন অনুযায়ী সেখানকার কোম্পানিগুলো চীনের গোয়েন্দাদের সহায়তা করতে বাধ্য।

"ফাইভ জি নেটওয়ার্কের জন্য সেসব যন্ত্রাংশ দরকার, সেগুলো শুধুই অবকাঠামোর যন্ত্রাংশ হিসেবে ব্যবহার হয়না," বলছিলেন তিনি।

p06zl06d.jpg