আয় করুন
$50000
বন্ধুদের আমন্ত্রণ করার জন্য
ইন্সটাফরেক্স থেকে স্টার্টআপ
বোনাস নিন
কোন বিনিয়োগের প্রয়োজন নেই!
কোনো বিনিয়োগ এবং ঝুঁকি
ছাড়াই ট্রেডিং শুরু করতে
গ্রহণ করুন নতুন স্টার্টআপ
বোনাস $1000
বোনাস নিন
৫৫%
ইন্সটাফরেক্স থেকে
প্রতিবার অর্থ জমাদানে
+ প্রসঙ্গে প্রত্যুত্তর
পৃষ্ঠা 11 of 11 প্রথমপ্রথম ... 91011
ফলাফল দেখাচ্ছে 101 হইতে 104 সর্বমোট 104

প্রসংগ: ঢাকা শেয়ার মার্কেটের যত নিউজ!

  1. #101 সঙ্কুচিত পোস্ট
    প্রবীণ সদস্য FXBD's Avatar
    নিবন্ধনের তারিখ
    Oct 2017
    মন্তব্য
    244
    অর্জিত পেমেন্টস
    26.44 USD
    ধন্যবাদ
    484
    85 টি পোস্টের জন্য 303 বার ধন্যবাদ পেয়েছেন
    করোনাভাইরাস সঙ্কটে অর্থের জোগান বাড়াতে রেপো (পুনঃক্রয় চুক্তি) ও রিভার্স রেপোর সুদহার আরও এক দফা কমিয়ে বুধবার ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য এই মুদ্রানীতি ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। আর পুঁজিবাজারে ‘আশা জাগাচ্ছে’ নতুন এই মুদ্রানীতি। কেননা রেপো বা রিভার্স রেপোর মাধ্যমে সাধারণত এক দিনের জন্য ধার করা বা জমা রাখা হয়। একে বলা হয় ব্যাংকিং খাতের নীতি উপাদান (পলিসি টুলস)। এর সুদ হারকে বলা হয় নীতি সুদ হার (পলিসি রেট)। এর মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ব্যাংক বাজারে তারল্য ও বিনিয়োগ নিয়ন্ত্রণ করে। রেপোর সুদ কমলে ব্যাংকগুলো কম খরচে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে তহবিল পাবে। তাতে তারা কম সুদে ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীদের ঋণ দিতে পারবে। অন্যদিকে রিভার্স রেপোর সুদ হার কমানোর অর্থ হলো, ব্যাংকগুলোকে চাপ দেওয়া, যাতে তারা কেন্দ্রীয় ব্যাংকে টাকা ফেলে রেখে মুনাফা না তুলে ব্যবসা ও উদ্যোগে বিনিয়োগ বাড়ায়। ফলে বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন ‘সম্প্রসারণমুখী’ মুদ্রানীতি পুঁজিবাজারে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলে আশা করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা।

  2. আপনার ধন্যবাদ সরিয়ে ফেলুন

    নিম্নলিখিত 4 সদস্য দরকারী পোস্টের জন্য FXBD কে ধন্যবাদ জানিয়েছেন:

    BDFOREX TRADER (07-30-2020),DhakaFX (07-30-2020),Unregistered (2 )

  3. #102 সঙ্কুচিত পোস্ট
    প্রবীণ সদস্য Montu Zaman's Avatar
    নিবন্ধনের তারিখ
    Feb 2018
    মন্তব্য
    665
    অর্জিত পেমেন্টস
    1,026.62 USD
    ধন্যবাদ
    428
    207 টি পোস্টের জন্য 649 বার ধন্যবাদ পেয়েছেন
    ঈদুল আজহা উপলক্ষে গত ৩১ জুলাই থেকে ২ আগস্ট পর্যন্ত ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই-সিএসই) বন্ধ রয়েছে। ছুটি শেষে আজ সোমবার (০৩ আগস্ট) থেকে স্বাভাবিক নিয়মে উভয় পুঁজিবাজারে লেনদেন চালু হয়েছে। ডিএসই ও সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে বিদায়ী সপ্তাহে (২৬-৩০ জুলাই) সূচকের টানা উত্থানে শেষ হয়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) লেনদেন। সপ্তাহটিতে ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে ৮০ শতাংশ। আর সপ্তাহজুড়ে বাজার মূলধন বেড়েছে ১১ হাজার ৮০ কোটি টাকা। পর্যালোচনায় দেখা যায়, বিদায়ী সপ্তাহের ৫ কার্যদিবসে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ২ হাজার ২৩৩ কোটি ৭৬ লাখ ৯৩ হাজার টাকা। তার আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ২৩৭ কোটি ৭৮ লাখ ৭ হাজার টাকা। ফলে আগের সপ্তাহ থেকে বিগত সপ্তাহে লেনদেন বেড়েছে ১ হাজার ১৪ কোটি ৪৩ লাখ ৪ হাজার টাকা। ডিএসইতে সপ্তাহজুড়ে গড় লেনদেন হয়েছে ৪৪৬ কোটি ৭৫ লাখ ৩৮ হাজার ৭১৫ টাকার। আগের সপ্তাহে গড় লেনদেন হয়েছিল ২৪৭ কোটি ৫৬ লাখ ১৪ হাজার ৮৬৪ টাকার। সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে গড় লেনদেন বেড়েছে ১৯৯ কোটি ১৯ লাখ ২৩ হাজার টাকা। বিদায়ী সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ২৫ হাজার ৭৩২ কোটি ৭৬ লাখ ১ হাজার টাকায়। আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে বাজার মূলধন ছিল ৩ লাখ ১৭ হাজার ৫২৮ কোটি ১১ লাখ ৮৮ হাজার টাকায়। সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়েছে ৮ হাজার ২০৪ কোটি টাকা। সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১৩৩.৪৯ পয়েন্ট বা ৩.২৭ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ২১৪.৪৩ পয়েন্টে। অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৩০.০৮ পয়েন্ট বা ৩.১৮ শতাংশ এবং ডিএসই-৩০ সূচক ৪৬.০৫ পয়েন্ট বা ৩.৩৫ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ৯৭৬.৫০ পয়েন্টে এবং ১৪২০.৬৫ পয়েন্টে।
    বিদায়ী সপ্তাহে ডিএসইতে মোট ৩৫৯টি কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিটের লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ২০৫টির, কমেছে ৩৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১২০টির শেয়ার ও ইউনিট দর।
    4-dse-csenews1.jpg

  4. #103 সঙ্কুচিত পোস্ট
    প্রবীণ সদস্য DhakaFX's Avatar
    নিবন্ধনের তারিখ
    Oct 2017
    মন্তব্য
    389
    অর্জিত পেমেন্টস
    63.97 USD
    ধন্যবাদ
    516
    105 টি পোস্টের জন্য 361 বার ধন্যবাদ পেয়েছেন
    ঈদের ছুটির পরও চাঙাভাব পুঁজিবাজারে। ঈদের ছুটির পর প্রথম দিন সূচক ও লেনদেন দুটোই বেড়েছে পুঁজিবাজারে। সোমবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের চেয়ে ৫৭ দশমিক ৩৯ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৩৬ শতাংশ বেড়ে ৪ হাজার ২৭১ দশমিক ৮২ পয়েন্টে অবস্থান করছে। এই সূচক প্রায় ৫ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। এর আগে এর চেয়ে বেশি সূচক ছিল ২০২০ সালের ৮ মার্চ ৪ হাজার ২৮৭ পয়েন্ট। সোমবার অবধি টানা সাত দিন সূচক বাড়ল ঢাকার পুঁজিবাজারে। ৭ কার্যদিবসে সূচক বেড়েছে ১৯৫ পয়েন্ট। নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণার পর থেকে পুঁজিবাজারে তার ইতিবাচক প্রভাব প্রত্যাশা করা হচ্ছিল। করোনাভাইরাস সঙ্কটে অর্থের জোগান বাড়াতে রেপো (পুনঃক্রয় চুক্তি) ও রিভার্স রেপোর সুদহার আরও এক দফা কমিয়ে ‘সম্প্রসারণমুখী’ মুদ্রানীতি ঈদের আগেই ঘোষণা হয়। ডিএসইতে সোমবার ৬৭২ কোটি ৩৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়, যা আগের কর্মদিবসে ছিল ৫৮০ কোটি ৯ লাখ টাকা।

    ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩৫৫টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৯২টির, আর কমেছে ৬২টির। আর অপরিবর্তিত রয়েছে ১০১টির দর। ঢাকার অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ১৬ দশমিক ৬৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৯৯৩ দশমিক ১৪ পয়েন্টে। আর ডিএস৩০ সূচক ২২ দশমিক ১৫ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ৪২২ দশমিক ৭৯ পয়েন্টে। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) প্রধান সূচক সিএএসপিআই ১৬৫ দশমিক ২৪ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১২ হাজার ১২২ পয়েন্টে, যা আগের দিনের তুলনায় দশমিক ১ দশমিক ৩৮ শতাংশ বেশি। সিএসইতে ১৩ কোটি ৮৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যা আগের দিন ছিল ১১ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২৪৬টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৪৪টির, কমেছে ২৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৭৫টির দর। পুঁজিবাজারে কোরবানির ঈদের আগে শেষ লেনদেন হয়েছে বৃহস্পতিবার। ছুটি শেষে সোমবার থেকে আবার লেনদেন হচ্ছে দেশের দুই্ পুঁজিবাজারে।

  5. আপনার ধন্যবাদ সরিয়ে ফেলুন

    নিম্নলিখিত 5 সদস্য দরকারী পোস্টের জন্য DhakaFX কে ধন্যবাদ জানিয়েছেন:

    SaifulRahman (08-04-2020),Tofazzal Mia (08-04-2020),Unregistered (3 )

  6. #104 সঙ্কুচিত পোস্ট
    প্রবীণ সদস্য Rassel Vuiya's Avatar
    নিবন্ধনের তারিখ
    Feb 2018
    মন্তব্য
    278
    অর্জিত পেমেন্টস
    370.19 USD
    ধন্যবাদ
    368
    129 টি পোস্টের জন্য 707 বার ধন্যবাদ পেয়েছেন
    টানা ৯ দিন সূচকে ঊর্ধ্বগতি, ঈদের ছুটির পর তৃতীয় দিনের লেনদেনে সূচক বেড়েছে বাংলাদেশের দুই পুঁজিবাজারে। বুধবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের চেয়ে ৮ দশমিক ০৫ পয়েন্ট বা দশমিক ১৯ শতাংশ বেড়ে ৪ হাজার ৩০৭ দশমিক ১৫ পয়েন্টে অবস্থান করছে। টানা নয় কার্যদিবসে ডিএসইতে সূচক বেড়েছে ২৩০ পয়েন্ট। ২২ জুলাই সূচক ছিল ৪ হাজার ৭৭ পয়েন্ট। এই সূচক বুধবার হয়েছে থেকে ৪ হাজার ৩০৭ পয়েন্ট। ডিএসইতে এদিন ৭১৮ কোটি ৩৪ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়, যা আগের কর্মদিবসে ছিল ৬৭৬ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। এই লেনদেন প্রায় এক মাসের মধ্যে বেশি। এর আগে এর চেয়ে বেশি লেনদেন ছিল ২৮ জুন ২০২০। সেদিন লেনদেন ছিল ২ হাজার ৫৪৩ কোটি। ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩৫২টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৫৫টির, আর কমেছে ১২৩টির। আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৭৪টির দর। ঢাকার অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ২ দশমিক ২৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৯৯৭ দশমিক ৪৩ পয়েন্টে। আর ডিএস৩০ সূচক ২ দশমিক ৪৭ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ৪৫২ দশমিক ৪২ পয়েন্টে।

    অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) প্রধান সূচক সিএএসপিআই ২৯ দশমিক ৫২ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১২ হাজার ২১৬ পয়েন্টে, যা আগের দিনের তুলনায় দশমিক ২৪ শতাংশ বেশি। সিএসইতে ১৩ কোটি ২৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যা আগের দিন ছিল ১৭ কোটি ২ লাখ টাকা। সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২৫৬টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১০৮টির, কমেছে ৯২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৫৬টির দর।

+ প্রসঙ্গে প্রত্যুত্তর
পৃষ্ঠা 11 of 11 প্রথমপ্রথম ... 91011

মন্তব্য নিয়মাবলি

  • আপনি হয়ত নতুন পোস্ট করতে পারবেন না
  • আপনি হয়ত মন্তব্য লিখতে পারবেন না
  • আপনি হয়ত সংযুক্তি সংযুক্ত করতে পারবেন না
  • আপনি হয়ত আপনার মন্তব্য পরিবর্তনপারবেন না
  • BB কোড হলো উপর
  • Smilies are উপর
  • [IMG] কোড হয় উপর
  • এইচটিএমএল কোড হল বন্ধ
বাংলাদেশ ফরেক্স ফোরাম � উপস্থাপন
ফোরাম সেবায় আপনাকে স্বাগতম যেটি ভার্চুয়াল স্যালুন হিসেবে সকল স্তরের ট্রেডারদের সাথে যোগাযোগ করার সুযোগ প্রদান করছে। ফরেক্স হলো একটি গতিশীল আর্থিক বাজার যেটি দিনে ২৪ঘন্টা খোলা থাকে। যে কেউ ব্রোকারেজ কোম্পানির মাধ্যমে এখানে কার্যক্রম সম্পাদন করতে পারে। এই ফোরামে আপনি কারেন্সি মার্কেটে ট্রেডিং এবং মেটাট্রেডার ফোর ও মেটাট্রেডার ফাইভের মাধ্যমে অনলাইন ট্রেডিং সম্পর্কিত বিস্তারিত বিবরণ পাবেন।

বাংলাদেশ ফরেক্স ফোরাম � ট্রেডিং আলোচনা
ফোরামের প্রত্যেক সদস্য বিভিন্ন আলোচনায় অংশগ্রহণ করতে পারেন, যার মধ্যে ফরেক্স সম্পর্কিত ও ফরেক্সের বাইরের বিভিন্ন বিষয়ও রয়েছে। ফোরাম বিভিন্ন মতামত এবং প্রয়োজনীয় তথ্য শেয়ারের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে এবং এটি অভিজ্ঞ ও নতুন উভয় ধরণের ট্রেডারদের জন্য উন্মুক্ত। পারস্পরিক সহায়তা এবং সহনশীলতা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। আপনি যদি অন্যদের সাথে আপনার অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে চান অথবা ট্রেডিং সম্পর্কে আপনার জ্ঞান বৃদ্ধি করতে চান, তাহলে ট্রেডিং সম্পর্কিত আলোচনা "ফোরাম থ্রেড" এ আপনাকে স্বাগত।

বাংলাদেশ ফরেক্স ফোরাম � ব্রোকার এবং ট্রেডারদের মধ্যে আলোচনা (ব্রোকার সম্পর্কে)
ফরেক্সে সফল হতে চাইলে, যথেষ্ট কৌশলের সাথে একটি ব্রোকারেজ কোম্পানি বাছাই করতে হবে। আপনার ব্রোকার সত্যিই নির্ভরযোগ্য সেটি নির্ধারণ করুন! এভাবে আপনি অনেক ঝুঁকির সম্মুখীন হবেন এবং ফরেক্সে লাভজনক ট্রেড করতে পারবেন। ফোরামে একজন ব্রোকারের রেটিং উপস্থাপন করা হয়; এটি তাদের গ্রাহকদের রেখে যাওয়া মন্তব্য নিয়ে তৈরি করা হয়। আপনি যে ব্রোকার কোম্পানির সাথে কাজ করছেন সে কোম্পানি সম্পর্কে আপনার মতামত দিন, এটি অন্যান্য ট্রেডারদের ভুল সংশোধন করতে সাহায্য করবে এবং একজন ভালো ব্রোকার বাছাই করতে সাহায্য করবে।

অবিচ্ছিন্ন যোগাযোগ বাংলাদেশ ফরেক্স ফোরাম
এই ফোরামে আপনি শুধু ট্রেডিং এর বিষয় সম্পর্কেই কথা বলবেন না, সেইসাথে আপনার পছন্দের যে কোন বিষয় সম্পর্কে কথা বলতে পারবেন। বিশেষ থ্রেডে অফটপিং ও করা যায়! আপনার পছন্দের যে কোন হাস্যরস, দর্শন, সামাজিক সমস্যা বা বাস্তব জ্ঞান সম্পর্কিত কথাবার্তা এখানে উল্লেখ করতে পারবেন, এমনকি আপনি যদি পছন্দ করেন তাহলে ফরেক্স ট্রেডিং সম্পর্কেও লিখতে পারবেন!

যোগদান করার জন্য বোনাস বাংলাদেশ ফরেক্স ফোরামে
যারা ফোরামে লেখা পোষ্ট করবে তারা বোনাস হিসেবে অর্থ পাবে এবং সেই বোনাস একটি অ্যাকাউন্টে ট্রেডিং এর সময় ব্যবহার করতে পারবে. ফোরাম অর্থ মুনাফা লাভ করা নয়, অধিকন্তু, ফোরামে সময় ব্যয় করার জন্য এবং কারেন্সি মার্কেট ও ট্রেডিং সম্পর্কে মতামত শেয়ারের জন্য পুরষ্কার হিসেবে ফোরামিটিস অল্প কিছু বোনাস পায়।