যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের আধিপত্যের অবসান ঘটিয়ে গত সপ্তাহে ২০১১ সালের পর প্রথমবারের মতো গতিময় কম্পিউটারের ‘টপ৫০০’ তালিকায় এক নম্বর স্থান দখলের গৌরব অর্জন করে জাপানের সুপারকম্পিউটার ফুগাকু। উল্লেখ্য যে বিশ্বের কম্পিউটার জগতে বিবর্তন আর কে কোনটির চেয়ে শক্তিশালী, সে ব্যাপারে খোঁজ রাখে ও তালিকা করে ‘টপ৫০০’।
ফুগাকু এক সেকেন্ডে ৪১৫ কুয়াড্রিলিয়ন (দশ লাখের চতুর্ঘাত বা ১-এর পর ১৫টি শূন্য) গণনা করতে পারে, যা আগের শীর্ষস্থানধারী যুক্তরাষ্ট্রের ওক ন্যাশনাল ল্যাবরেটরির তৈরি সামিট সিস্টেম-এর চেয়ে ২ দশমিক ৮ গুণ বেশি দ্রুতগতিসম্পন্ন। াপানের প্রযুক্তি জায়ান্ট ফুজিত্সু আর সরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান রিকেনের যৌথ প্রয়াসে তৈরি ফুগাকুতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে ১ লাখ ৫০ হাজার হাই পারফরম্যান্স প্রসেসিং ইউনিট, যা কিনা এক সপ্তাহে হাজারো পরীক্ষা সম্পন্ন করতে পারে। একটি সাধারণ কম্পিউটারের চেয়ে ১ হাজার গুণ বেশি দ্রুতগতিসম্পন্ন হয়ে থাকে সুপারকম্পিউটার। এটি পারমাণবিক বিস্ফোরণ, অস্ত্রশস্ত্র পরীক্ষা ও জলবায়ু পরীক্ষাজনিত নানা কাজে ব্যবহূত হয়ে থাকে। নিক্কি বিজনেস নিউজপেপার জানিয়েছে, ভূকম্পনের দিক থেকে বিশ্বে সবচেয়ে সক্রিয় দেশ জাপানে এই সুপারকম্পিউটার ভূমিকম্প ও সুনামির প্রভাব নির্ণয়ে মডেল প্রণয়ন করবে এবং এ থেকে বাঁচার উপায়ও বলে দেবে। ফুগাকু এর বর্তমান মুল্য ১৩০ বিলিয়ন ইয়েন (১.২ বিলিয়ন ডলার)
download-1-3.jpg